যাতুর রেকা অভিযান : ইতিহাসের পাতা থেকে

রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম খন্দকের তিনটি শক্তির মধ্যে দু'টি শক্তি নিজ নিয়ন্ত্রণে আনার পর তৃতীয় শক্তির প্রতি মনােযােগী হওয়ার সুযোেগ পেলেন। এরা ছিলাে বেদুইন। নজদের প্রান্তরে তাঁবুতে তারা জীবন কাটাতাে। লুটতরাজই ছিলাে তাদের জীবিকার উৎস। বেদুইনরা কোন জনপদ বা শহরের অধিবাসী ছিলাে না। বাড়ীঘর বা দুর্গের মধ্যে তারা বসবাস করতাে না। এ কারণে মক্কা এবং খয়বরের অধিবাসীদের মতাে তাদের নিয়ন্ত্রণ এবং দস্যুবৃত্তির আগুন পুরােপুরি নির্বাপিত করা ছিলাে কষ্টসাধ্য। তাদের শুধু ভীত-সন্ত্রস্ত করার মতাে কাজ করাই ছিলাে প্রয়ােজনীয়।

এ সকল বেদুইনকে প্রভাবিত মদীনার আশে পাশে সমবেত বেদুইনদের ছত্রভঙ্গ করার উদ্দেশ্যে রসূলুল্লাল্লাহু সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এক শিক্ষাদানমূলক অভিযান পরিচালনা করেন। এ অভিযানই যাতুর রেকা অভিযান নামে পরিচিত। সীরাত রচয়িতারা উল্লেখ করেছেন যে, চতুর্থ হিজরীতে এ অভিযান পরিচালিত হয়েছিলাে। কিন্তু ইমাম বােখারী (রা.) উল্লেখ করেছেন যে, সপ্তম হিজরীতে এ অভিযান চালানাে হয়। এ অভিযানে হযরত আবু হােরায়রা (রা.) এবং হযরত আবু মূসা আশয়ারী (রা.) অংশগ্রহণ করেছিলেন এ কারণে সুস্পষ্টভাবেই প্রমাণিত হয় যে, খয়বর যুদ্ধের পরই এ ঘটনা ঘটেছিলাে। কেননা হযরত আবু হােরায়রা (রা.) রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের খয়বর অভিযানে রওয়ানা হয়ে যাওয়ার পর মদীনায় গিয়ে ইসলাম গ্রহণ করেন। এরপর তিনি খয়বরে গিয়ে রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সাথে দেখা করেন। ততােদিনে খয়বর বিজয় সমাপ্ত হয়ে গেছে। হযরত আবু মূসা আশয়ারীও হাবশা থেকে সেই সময় রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কাছে খয়বরে পৌছেছিলেন যখন খয়বর বিজিত হয়েছে। এ কারণে যাতুর রেকা অভিযানে উল্লিখিত দু'জন সাহাবীর অংশগ্রহণ প্রমাণ করে যে, এ অভিযান খয়বর বিজয়ের পর কোন এক সময় ঘটেছিলাে।

যাতুর রেকা অভিযান। ইসলামের গৌরবময় ইতিহাস। সিরাতপাঠঃ আর রাহেকুল মাখতুম
যাতুর রেকা অভিযান (Source image : https://www.pexels.com/photo/palm-tree-near-white-concrete-building-3286817)

সীরাত রচয়িতারা এ অভিযান সম্পর্কে যা কিছু উল্লেখ করেছেন তার সার কথা হচ্ছে এই যে, রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আনসার বা বনু গাতফানের দু'টি শাখা বনি ছালাবা এবং বনি মাহারেবের সমবেত হওয়ার খবর পেয়ে মদীনায় ব্যবস্থাপনার দায়িত্ব হযরত আবু যর গেফারী (রা.) মতান্তরে হযরত ওসমান ইবনে আফফান (রা.)-এর ওপর ন্যস্ত করেন। পরে চারশত মতান্তরে সাতশত সাহাবাকে নিয়ে নজদ অভিমুখে যাত্রা করেন। মদীনা থেকে দুইদিনের পথের নাখলা নামক জায়গায় পৌছার পর তারা বনু গাতফানের একদল লােকের মুখােমুখি হন। কিন্তু তাদের সাথে যুদ্ধ হয়নি। তবে, রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সেখানে খণওফ নামায আদায় করেন।

সহীহ বােখারী শরীফে হযরত আবু মূসা আশয়ারী (রা.) থেকে বর্ণিত আছে যে, তিনি বলেন, রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সঙ্গে বেরুলাম। আমরা ছিলাম ছয়জন। মাত্র একটি উট ছিলাে। পালাক্রমে আমরা সেই উটের পিঠে সওয়ার হচ্ছিলাম। ফলে হাঁটতে হাঁটতে পায়ে ফোঙ্কা পড়ে যায়। আমার নিজের দুই পা যখম হয়ে যায়, নখে আঘাত পাই। ফলে আমরা পায়ে পট্টি বেঁধেছিলাম। যাতুর রেকা মানে হচ্ছে পট্টিওয়ালা। কেননা এ অভিযানের সময় আমরা পায়ে পট্টি বেঁধে রেখেছিলাম।

সহীহ বােখারীতে হযরত জাবের (রা.) থেকে বর্ণিত হয়েছে যে, আমরা যাতুর রেকা অভিযানের সময় রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের সঙ্গে ছিলাম। নিয়ম ছিলো যখন আমরা কোন ছায়াদানকারী গাছের নীচে যেতাম তখন সেই গাছের ছায়া রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের জন্যে রাখতাম। একবার রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম একটি ছায়াদানকারী গাছের নীচে বিশ্রাম করছিলেন, সাহাবারা এদিকে ওদিকে ছড়িয়ে গিয়েছিলেন রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম গাছের শাখায় তলােয়ার ঝুলিয়ে বিশ্রাম নেয়ার এক পর্যায়ে ঘুমিয়ে পড়লেন। হযরত যাবের বলেন, আমরা সকলেও ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। ইত্যবসরে একজন পৌত্তলিক এসে রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের তলােয়ার হাতে নিয়ে বললাে, তুমি আমাকে ভয় পাও? রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম অবিচলিত কণ্ঠে বললেন, না, মােটেই না। পৌত্তলিক বললাে, তােমাকে আমার হাত থেকে কে রক্ষা করবে? রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, আল্লাহ তায়ালা।

হযরত জাবের (রা.) বলেন, রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আমাদের ডাকলেন। আমরা তাঁর কাছে গিয়ে দেখি একজন অপরিচিত লােক তলােয়ার হাতে নিয়ে বসে আছে। রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, আমি শুয়েছিলাম, এমন সময় এই লােকটি আমার তলােয়ার হাতে নিয়েছে এরপর আমাকে বলেছে, তােমাকে আমার হাত থেকে কে রক্ষা করবে? আমি বলেছি, আল্লাহ রক্ষা করবেন। এই সেই লােক। এরপর রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাকে কোন কটু কথা বলেননি।

আবু আওয়ানার বর্ণনায় আরাে উল্লেখ রয়েছে যে, রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম যখনই বললেন যে, আল্লাহ তায়ালা রক্ষা করবেন তখনই তার হাত থেকে তলােয়ার খসে পড়ে যায়। রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তখন তলােয়ার হাতে নিয়ে লােকটিকে বললেন, এবার বলাে, তােমাকে কে রক্ষা করবে? লােকটি বললাে, আপনার দয়াই আমার ভরসা। রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বললেন, তুমি সাক্ষ্য দাও যে, আল্লাহ ব্যতীত কোন মাবুদ নেই এবং মােহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর রসূল। লােকটি বললাে, আমি আপনার সাথে অঙ্গীকার করছি যে, আপনার সাথে লড়াই করবাে না এবং যারা আপনার সাথে লড়াই করে তাদের কোন প্রকার সাহায্য করবাে না। রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পরে লােকটিকে ছেড়ে দিয়েছিলেন বলে হযরত জাবের (রা.) উল্লেখ করেছেন। লােকটি নিজের কওমের কাছে গিয়ে বললাে, আমি সবচেয়ে ভালাে মানুষের কাছ থেকে তােমাদের কাছে এসেছি।

সহীহ বােখারীর এক বর্ণনায় উল্লেখ রয়েছে যে, নামাযের একামত বলা হয়েছে এবং রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম একদল সাহাবাকে দুই রাকাত নামায পড়ালেন। এরপর তারা পেছনে চলে যান এবং তিনি অন্য একদল সাহাবাকে দুই রাকাত নামায পড়ান। এতে রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের চার রাকাত এবং সাহাবাদের দুই রাকাত নামায আদায় হয়। এই বর্ণনার বর্ণনাক্রম থেকে বােঝা যায় যে, এই নামায উল্লিখিত ঘটনার পরেই আদায় করা হয়। সহীহ বােখারীর বর্ণনায় উল্লেখ রয়েছে যে, এ লােকটির নাম গােওরেস ইবনে হারেছ। উক্ত বর্ণনা মােসাদ্দাদ আবু আওয়ানা থেকে এবং আবু আওয়ানা আবু বিশর থেকে উল্লেখ করেছেন।

ইবনে হাজার আসকালানি বলেন, ওয়াকেদী এ ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ উল্লেখ করতে গিয়ে বলেছেন, সেই বেদুইনের নাম ছিলাে দাসুর এবং সে ইসলাম গ্রহণ করেছিলাে। কিন্তু ওয়াকেদীর কথা থেকে বােঝা যায় যে, ঘটনা দু'টি পৃথক সময়ে ঘটেছিলাে। পৃথক পৃথক দু'টি যুদ্ধের সময় এ ঘটনা দু'টি ঘটে। আল্লাহই ভালাে জানেন।

এ অভিযান থেকে ফিরে আসার সময় সাহাবায়ে কেরাম একজন মােশরেক নারীকে আটক করেন। এ খবর পেয়ে সেই মহিলার স্বামী প্রতিজ্ঞা করে যে, সাহাবায়ে কেরামের মধ্যে থেকে সে একজনের রক্ত প্রবাহিত করবে। প্রতিজ্ঞা পূরণের জন্যে যে রাত্রিকালে এলাে। রসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মুসলমানদেরকে শক্রদের হাত থেকে হেফাযত করতে ওব্বাদ ইবনে বাশার এবং আম্মার ইবনে ইয়াসেরকে নিযুক্ত রেখেছিলেন। লােকটি আসার সময়ে হযরত ওব্বাদ নামায আদায় করছিলেন। সে অবস্থায় শত্ৰু তাঁকে তীর নিক্ষেপ করে। তিনি নামায না ছেড়ে এক ঝটকায় তীর বের করে ফেলেন। লােকটি দ্বিতীয়বার তীর নিক্ষেপ করলাে এরপর তৃতীয়বার তীর নিক্ষেপ করলাে। প্রতিবারই তিনি তীর খুলে ফেলেন। ছালাম ফিরায়ে নামায শেষ করার পর সঙ্গীকে জাগালেন এবং সব কথা জানালেন। সঙ্গী হযরত আম্মার ইবনে ইয়াসের বিস্মিত হয়ে বললেন, আপনি আমাকে কেন জাগালেন না? তিনি বললেন, আমি একটি সূরা তেলাওয়াত করছিলােম, সূরাটি শেষ না করে নামায শেষ করতে আমার ইচ্ছা হচ্ছিলাে না।

কঠিন হৃদয় আরব বেদুইনদের অর্থাৎ যাযাবরদের প্রভাবিত ও ভীত-সন্ত্রস্ত করতে এ যুদ্ধ ছিলাে খুবই কার্যকর। এই অভিযানের পরবর্তী সময়ের অভিযানসমূহের প্রতি লক্ষ্য করলে দেখা যায়, এই অভিযানের পর গাতফানের গােত্রসমূহ মাথা তােলার সাহস পায়নি। তারা ধীরে ধীরে নিস্তেজ এবং হীনবল হয়ে এক সময় ইসলাম গ্রহণ করে। এ সকল আরব গােত্রের কয়েকটিকে মক্কা বিজয় এবং হােনায়েনের যুদ্ধের সময় মুসলমানদের সাথে দেখা গেছে। তাদেরকে গনীমতের মালের অংশও প্রদান করা হয়েছে। মক্কা বিজয় থেকে ফিরে আসার পর তাদের কাছ থেকে যাকাত আদায় করতে ইসলামী রাষ্ট্রের কর্মচারীদের প্রেরণ করা হয়েছিলাে এবং তারা যথারীতি যাকাত পরিশােধ করেছিলাে। মােটকথা, রসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের কর্মপদ্ধতির ফলে খন্দকের যুদ্ধের সময়ে মুসলমানদের বিরুদ্ধে দাঁড়ানাে তিনটি শক্তিই চূণ-বিচূর্ণ হয়ে গিয়েছিলাে। এর ফলে সমগ্র এলাকায় শান্তি ও নিরাপত্তার বিস্তার ঘটে। এরপরে বিভিন্ন এলাকায় কিছু কিছু গােত্র হৈ চৈ করেছিলাে কিন্তু মুসলমানরা সহজেই তাদেরকে কাবু করে ফেলেন। এই অভিযানের পরই বড় বড় শহর ও দেশ জয়ের অভিযানের পথ মুসলমানদের জন্যে প্রশস্ত হতে শুরু করে। কেননা, এ অভিযানের পর দেশের আভ্যন্তরীণ অবস্থা ইসলাম ও মুসলমানদের অনুকূলে আসে।

তথ্যসূত্রঃ আর রাহেকুল মাখতুম/আল্লামা ছফিউর রহমান মুবারকপুরী
Powered by Blogger.