সুলতান বারকিয়ারুক : এক অবিচল আলোকবর্তিকা

রুকন আল-দীন আবুল-মুজাফ্ফার বার্কিয়ারুক ইবনে মালিকশাহ যিনি বারকিয়ারুক (برکیارق) নামে বেশি পরিচিত তিনি ছিলেন সেলজুক সাম্রাজ্যের পঞ্চম সুলতান এবং মালিক শাহ এর জেষ্ঠ পুত্র। তার রাজত্ব কাল ছিল ১০৯৪ থেকে ১১০৫ সাল অবধি।


মালিক-শাহ প্রথমের পুত্র এবং উত্তরসূরি মোহাম্মদ বারকিয়ারুক এমন একটি পর্যায়ে রাজত্বের দ্বায়িত্ব পালন করছিলেন যখন সেলজুক সাম্রাজ্য মুলতঃ এগিয়ে যাচ্ছিল ভাঙ্গনের দিকে। সেলজুক সাম্রাজ্যের ইতিহাসে তা ছিল খুবই দুর্বল। সেলজুক সাম্রাজ্য ভিতর ও বাহির সব দিক থেকেই তখন আক্রান্তের শিকার৷ এমন পরিস্থিতি যা তুর্কমান বসতি এবং বেইলিকগুলোকে বিদ্রোহী করে তুলেছিল, যা শেষ পর্যন্ত কিরমান থেকে আনাতোলিয়া এবং সিরিয়া পর্যন্ত প্রসারিত হয়েছিল। 


বারকিয়ারুক ইবনে মালিক শাহ। সেলজুক সুলতান মোহাম্মদ বারকিয়ারুক
Source : Wikimedia Commons

বার্কিয়ারুক তার শাসনকালের প্রায় সবটা সময়ে ভিতর বাহিরের নানান ঝামেলার মধ্য দিয়ে অতিবাহিত করতে হয়েছিল। বিশেষ করে সিংহাসনের অভিকার নিয়ে সেলজুক রাজকুমারদের মধ্যে দ্বন্দ্ব। ভাইয়ে ভাইয়ে লড়াইয়ের মাধ্যমেই সেলজুক দের পতন নিশ্চিত হয়েছিল। তার মধ্যে মালিক শাহ এর ভাই মালিক তেকিসও ছিলেন অন্যতম। প্রাসাদ ষড়যন্ত্র যে কখনোই ভালো কিছু বয়ে আনে না তার উদাহরণ ইতিহাসের পাতায় কম নেই।  ১১০৫ সালে বারকিয়ারুকের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে তাঁর কর্তৃত্ব অনেকাংশে বিলুপ্ত হয়ে যায়। বারকিয়ারুকের মৃত্যুর পর তার পুত্র মালিক-শাহ দ্বিতীয় সল্প সময়ের জন্য তাঁর স্থলাভিষিক্ত হন, যতক্ষণ না তিনি বার্কিয়ারুকের সৎ ভাই এবং প্রতিদ্বন্দ্বী মুহাম্মদ প্রথম বা মোহাম্মদ তাপরের হাতে মারা যান। ক্ষমতার জন্য এভাবেই চাচা তার ভাতিজাকেও সরিয়ে দিতে দ্বিধা করে নি৷ 


বারকিয়ারুক একটি তুর্কি শব্দ যার অর্থ "দৃঢ় ও অবিচল আলো"। সেলজুকরা একসময় গজনভীদ সাম্রাজ্যের প্রতি অনুগত ছিল ও তাদের রীতিনীতি, সংস্কৃতি মেনে চলত। তারা আলাদা সাম্রাজ্য গড়ে তুলার পর তুর্কিদের মধ্যে পারস্যের(প্রাচীন ইরান ও এর আশেপাশের অঞ্চলকে পারস্য বলে) সংস্কৃতি জায়গা করে নিতে থাকল। সেলজুকরা (তবুও পারস্যীকৃত হলেও) তাদের শেকড় বজায় রেখেছিল এবং গর্বিত হয়েছিল, তুর্কি নামগুলি তারই পরিচয় বহন করে। সেলজুক সাম্রাজ্যের সুলতানদের তুর্কি নামের মধ্যে যেমন, বার্কিয়ারুক, আরসলান, অর্ঘুজ, সেলজুক বা সেনজার।


সেলজুক সাম্রাজ্যের রাজধানী ইসফাহান শহরে ১০৭৯ বা ১০৮০ সালের দিকে সুলতান মালিক শাহ এর পুত্র মুহাম্মদ বারকিয়ারুক সেলজুক শাহাজাদী জুবাইদা হাতুনের কোলে জন্মগ্রহণ করেন। বারকিয়ারুক ছিলেন সুলতান মালিকশাহ এর প্রথম পুত্র। মালিক শাহ এর স্ত্রী জুবাইদা খাতুন ছিলন তার চাচাতো বোন।  নভেম্বর ১০৯২ সালের নবেম্বর মাসে যখন তার পিতা মালিক শাহ মৃত্যুবরণ করেন তখন বারকিয়ারুকের বয়স মাত্র তেরো বছর।


বারকিয়ারুক ইবনে মালিক শাহ এর রাজনৈতিক মানচিত্র


তখন বিশাল সেলজুক সাম্রাজ্যের উত্তরাধিকারী হওয়ার জন্য প্রাপ্ত বয়স্ক কোন রাজকুমার ছিল না।  বারকিয়ারুকের সৎ ভাই মুহাম্মদ তপারের বয়স তখন কেবল এগারো বছর আরও এক সৎ ভাই ছিলেন যার বয়স মাত্র চার বছর। এদিকে মালিক তেকিস বা মেলিক তেকিস নামে মালিক শাহের এক ভাই ছিলেন যিনি তার ভাইয়ের পক্ষে সিরিয়ায় শাসন করেছিলেন।


তিনি একমাত্র প্রাপ্তবয়স্ক ছিলেন যিনি সিংহাসন দাবি করেছিলেন, তবে তুর্কি অভিজাতদের কাছ থেকে মালিক তেকিস সমর্থন পান নি। আর এভাবেই মালিক-শাহের মৃত্যু সাম্রাজ্যের পতন ও টুকরো টুকরো হওয়ার সূচনা করে। আমির ও প্রাসাদের অভিজাতরা তার এক যুবক পুত্রকে সুলতান হিসাবে সমর্থন দিয়ে ক্ষমতা অর্জনের জন্য প্রত্যেকে চেষ্টা করে যে ছিল তেরকেন খাতুনের শিশুপুত্র। এর ফলে সেলজুক সাম্রাজ্যের ভিত্তি দুর্বল হয়ে পড়ে। যার ফলে তুর্কিমান বসতিগুলোর মধ্যে বিশৃঙ্খলা বেড়ে যায়৷ এবং তারা নিজেরা মুলত স্বাধীন বেইলকের সূচনা করে, যা  পরে কিরমান থেকে আনাতোলিয়া এবং সিরিয়া পর্যন্ত প্রসারিত হয়। 


সুলতান মালিক-শাহের স্ত্রী টেরকেন বা তেরকেন খাতুন সেলজুক উজির তাজ আল-মুলকের সহযোগিতায় তার চার বছরের ছেলে মাহমুদকে বাগদাদে সিংহাসনে বসিয়েছিলেন।  তিনি আব্বাসীয় খলিফা আল-মুস্তাহজিরকে মাহমুদের নামে খুতবা পড়তে রাজি করেছিলেন এবং আমির কিওয়াম আল-দাওলা কিরবুকার অধীনে একটি সেনা প্রেরণ করে ইসফাহান অবরোধ করেন এবং বার্কিয়ারুককে ধরে আনেন। 


হাসান সাব্বাহ এর আততায়ীদের হাতে নিহত সেলজুক উজির আতাবেগ খাজা নিজামুল মুলক এর পরিবার এবং সমর্থকরা (যারা "নিজামিয়া" নামে পরিচিত) তারা বারকিয়ারুককে সমর্থন করেছিলেন। তাই তুরস্কের মামলুক বা দাস-সেনা কমান্ডার  এরঘোশের নেতৃত্বে তারা বার্কিয়ারুককে ইসফাহান থেকে উদ্ধার করে নিয়ে যান এবং সাভে ও আভেহে তাঁর আতাবেগ (অভিভাবক) গুমুস্টিগিনের কাছে প্রেরণ করেন, যিনি তাকে রায়ের শহরে ক্ষমতার মুকুট পড়িয়েছিলেন।


যদিও বার্কিয়ারুয়াক সাধারণত নিজামিয়াকে সমর্থন করেছিলেন, আধুনিক ইতিহাসবিদ ক্লিফোর্ড এডমুন্ড বসওয়ার্থ বলেছেন যে "নিজাম আল-মুলকের কোন পুত্রই তার পিতার যোগ্যতা এবং সুযোগবাদে সমান ছিল না।"।  নিজামিয়ারা  তাজ আল-মুলকের বিরুদ্ধে প্রতিশোধ নিতে চেয়েছিলেন, কারণ ধারণা করা হয় নিজামুল মুলকের মৃত্যুর পিছনের তাজ-উল-মুলকেরও কিছু সংযোগ ছিল(যা আধুনিক ইতিহাসবিদ অ্যান্ড্রু ময়ূরের মতে কিছুটা সত্যতা পাওয়া যায়)। ১০৯৩ সালে তাজ-উল-মুলক ও নিজামুল মুলকের সমর্থকদের মধ্যে যুদ্ধ সংগঠিত হয়, ফলশ্রুতিতে মাহমুদের সমর্থকরা পরাজিত হয় এবং তাজ আল-মুলককে ধরে নিয়ে যায়।  তাজ আল-মুলকের আমলাতান্ত্রিক দক্ষতা সম্পর্কে অবহিত বার্কিয়ারুয়াক তাকে তাঁর পাশে রাখতেও রাজি ছিলেন।  তাজ আল-মুলক এমনকি ঘুষের মাধ্যমে নিজামিয়ার একটি অংশকে সন্তুষ্টও করতে পেরেছিলেন;  তবুও এটি যথেষ্ট ছিল না;  প্রতিশোধের তৃষ্ণার্ত নিজামিয়ারা একই বছর ১২ ফেব্রুয়ারি তার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করেছিলেন।  তেরকেন খাতুন শিগগিরই সেলজুক রাজপুত্র ইসমাইল ইবনে ইয়াকুতিকে বার্কিয়ারুয়াককে আক্রমণ করার জন্য ডেকে পাঠালেন।  কিন্তু গুমুশ-তেকিন আজারবাইজান এবং আরান থেকে তুরকোমানের একটি সৈন্য সংগ্রহ করেছিল, বার্কিয়ারিকের আতাবেগ গুমুশ-তেগিনের হাতে ইয়াকুতি পরাজিত হয়। তেরকেন খাতুন তখন মালিক তেকিসের কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা করেছিলেন, তবে হঠাৎ তার সন্তান মাহমুদ ১০৯৪ সালের দিকে অসুস্থ হয়ে পড়ে এবং এক মাসের মধ্যেই মারা যায়। 


কিন্তু এতেও সমস্যার সমাধান হয়নি। বার্কিয়ারুককে তার চাচা তেকিসকেও মোকাবেলা করতে হয়েছিল, যিনি জাজিরা এবং পশ্চিম ইরানে আক্রমণ করেছিলেন এবং রায় শহর দখল করেছিলেন।  ১০৯৫ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি বার্কিয়ারুক তার বাহিনী নিয়ে শহর আক্রমণ করে এবং শহরের কাছে চাচা তেকিস বা তুকুশকে হত্যা করেন। বার্কিয়ারুয়াক এভাবে পশ্চিম ইরান ও ইরাকে তার কর্তৃত্বকে একীভূত করতে সক্ষম হয় এবং আল-মুস্তাজির কর্তৃক সুলতান হিসাবেও স্বীকৃত হন।  


এই বিশৃঙ্খলার পরিস্থিতি চলাকালীন সময়ে মালিক-শাহের ভাই আরঘুন আরসলান নিজের রাজত্ব প্রতিষ্ঠার চেষ্টা করেন। এজন্য তিনি খুরাসানের বেশিরভাগ অংশ (নিশাপুর শহর বাদে) জয় করেছিলেন।  বার্কিয়ারুক প্রথম খুরাসানকে জয় করার জন্য তাঁর চাচা বোরি-বার্স ইবনে আল্প-আরসলানের নেতৃত্বে  একটি বাহিনী প্রেরণ করেন, কিন্তু পরবর্তীকালে তাকে ধরে নিয়ে গিয়ে হত্যা করা হয়।  


তিনি তার সৎ ভাই আহমদ সেনজার এর অধীনে ১০৯৭ সালে দ্বিতীয় বারের মতো অর্ঘুন-আরসালানের বিরুদ্ধে খোরাসানে সেনা প্রেরণ করেছিলেন, কিন্তু সেনাদল খোরাসানে পৌছানোর আগেই আরঘুন আরসলান তার প্রজাদের সাথে নির্মম আচরণের কারণে তার নিজের একটি গোলাম কর্তৃক মারা গিয়েছিলেন।  বার্কিয়ারুক আহমেদ সেনজারকে খোরাসানের শাসক (মালেক) হিসাবে নিযুক্ত করেছিলেন এবং খোরাসানে সেনজারকে তাঁর নিজের আতাবেগ (আমির কামাজ) এবং ভাইজার (আল-তুগ্রাই) কে সহযোগিতার জন্যে পাঠিয়ে দেন।


এরপরে বার্কিয়ারুক তীরমিদের পূর্ব দিকে একটি অভিযানের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন, যেখানে তিনি কারাখানিধ সুলায়মান-তেগিন এবং মাহমুদ-তেগিনকে ট্রান্সস্যাকিয়ানার(Transoxiana) ভাসাল শাসক হিসাবে নিযুক্ত করেছিলেন।  তিনি কুতুব আল-দীন মুহাম্মদকে খাওয়ারিজমে মধ্য এশীয় অঞ্চলের নতুন গভর্নর হিসাবে নিযুক্ত করেছিলেন।  তিনি বালখ শহরে সাত মাস অতিবাহিত করেন এবং তারপরে পশ্চিমে ফিরে এসেছিলেন।  যাইহোক, তাঁর পূর্বাঞ্চল ছেড়ে যাওয়ার পরে, অঞ্চলটি সেলজুক রাজপুত্র দৌলতশাহ সহ একাধিক ধারাবাহিক বিদ্রোহে নিমগ্ন হয়েছিল।  নিশাপুরে মুদ্রা থেকে বের্কিয়ারুকের নাম বাদ পড়া, খুরাসানে তাঁর শাসনের বিচ্ছিন্নতারই সাক্ষ্য দেয়।  ধারাবাহিক অভ্যন্তরীণ ইস্যুতে পিষ্ট হয়ে, বার্কিয়ারুক সিরিয়ায় ১০৯৭ সালে সংগঠিত ক্রুসেডের বিরুদ্ধে তেমন কোনো পদক্ষেপ নিতে পারেননি। ক্রুসেডাররা এন্টিওককে ঘিরে ফেলে এবং মাআররাত আল-নুমানকে বরখাস্ত করে। তদুপরি, সিরিয়ার সেলজুকদের ভুমি ভাগাভাগি, ক্ষমতার দ্বন্দ্ব সেলজুক দের দুর্বল করে দিয়েছিল। উত্তরে ফখর আল-মুলক রাদওয়ান এবং দক্ষিণে শামস আল-মুলুক দুকাক দ্বারা শাসিত হয়েছিল।  যখন ক্রুসেডাররা সিরিয়ায় প্রবেশ করেছিল, রিদওয়ান বারকিয়েরাক থেকে তাঁর আনুগত্য ফাতিমি খিলাফতে স্থানান্তরিত করেছিলেন।


মুহাম্মাদ প্রথম বা তপারের সাথে দ্বন্দ্বে বার্কিয়ারুক সবচেয়ে কঠিন চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হন। ১০৮৯ সালে তাঁর সৎ ভাই মুহাম্মদ তপার বিদ্রোহ করেছিলেন। এই বিদ্রোহটি নিজাম আল-মুলকের পুত্র মুয়ায়েদ আল-মুলক দ্বারা উৎসাহিত বলে ধারণা করা হয়। তিনি পূর্বে বার্কিয়ারিকের দায়িত্ব পালন করেছিলেন এবং মালিক তেকিসকে পরাজিত করতে মূল ভুমিকা পালন করেছিলেন। বার্কিয়ারুক মুয়াইদ আল-মুলককে বরখাস্ত করার পরে, তিনি মুহাম্মদ তপারের খেদমতে চলে যান, তপার তাকে তাঁর উজির হিসাবে নিয়োগ করেছিলেন।  মুয়াইদ আল-মুলক তার প্রতিদ্বন্দ্বীদের যথাযথ শায়েস্তা করার জন্য তার নতুন অবস্থানটি ব্যবহার করেছিলেন। 


 এটা সহজ ছিল কারণ মুহম্মদ তপারের বয়স তখন কেবল ১৭ বছর। নিজামিয়া ও অন্যান্য উচ্চ বংশের লোকেরা মুয়াইদ আল-মুলকের সাথে যোগদান করেন। এবং একটি বিদ্রোহ করেন। আরানের গঞ্জা শহরে মুহম্মদের ঘাঁটি থেকে এই বিদ্রোহ শুরু হয়েছিল। শহরটি বার্কিয়ারুক তাকে ইকতা (ভূমি অনুদান) হিসাবে দিয়েছিল।


প্রতিনিয়ত রাজ্যের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে সেলজুক সাম্রাজ্য ধীরে ধীরে দূর্বল হয়ে যাচ্ছিল। একই সাথে বার্কিয়ারুকের কর্তৃত্ব দুর্বল হতে থাকে এবং ১১০৪ খ্রিস্টাব্দে তাঁর কোষাগার প্রায় খালি হয়ে যাচ্ছিল। পরবর্তীকালে একটি শান্তি চুক্তি হয়েছিল, যা মুহাম্মদকে দক্ষিণ ইরাক, উত্তর ইরান, দিয়ার বকর, মোসুল এবং সিরিয়ার শাসক হিসাবে স্বীকৃতি দেয়, বারকিয়ারুক ইরানের বাকি অংশের (ইসফাহান সহ) এবং বাগদাদের শাসক হিসাবে স্বীকৃত হয়েছিল। 


১১০৫ সালের পর থেকে কেন্দ্রীয় ইসলামী দেশগুলিতে বার্কিয়ারুয়াকের নাম উল্লেখ করে কোনও মুদ্রা ছাপানো হতো না। একবার ইসফাহান যাওয়ার পথে, তিনি ২৫ বছর বয়সে বুরুজেরদ শহরের নিকটস্থ একটি স্থানে যক্ষা রোগে তিনি মারা যান এবং তাঁর পরে তাঁর পুত্র পুত্র মালিক-শাহ দ্বিতীয় সিংহাসনে বসেন। পরবর্তীকালে বাগদাদে মুহাম্মদ তপার অভিযান পরিচালনা করে এবং বারকিয়ারুকের পত্র মালিক-শাহকে দ্বিতীয় কে হত্যা করে। 


Previous Post Next Post